Home / প্রচ্ছদ / পাইকগাছায় ছেলেধরা ও বোরকা পার্টির গুজব নয় সত্য! আটক ৩, গণপিটুনীর শিকার এক মহিলা

পাইকগাছায় ছেলেধরা ও বোরকা পার্টির গুজব নয় সত্য! আটক ৩, গণপিটুনীর শিকার এক মহিলা

পাইকগাছা প্রতিনিধিঃ এন.কে রায়ঃ পাইকগাছায় ছেলেধরা ও বোরকা পার্টি র ঘটনা গুজব নয় সম্পূর্ন সত্য বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী। গত কয়েক দিন ধরে পাইকগাছার সর্বত্রই বোরকা পার্টি ও ছেলে ধরা আতংক বিরাজ করছে। সব চেয়ে বেশি আতংকে রয়েছে পরিবারের নারী ও শিশুরা। আতংকিত এলাকাবাসী কোথাও কোথাও রাতে পাহারার ব্যবস্থা করেছে। এদিকে, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উপজেলার আগড়ঘাটা বাজার সংলগ্ন সিলেমানপুর এলাকায় এলাকাবাসী ছেলে ধরা সন্দেহে অজ্ঞাত এক মহিলাকে গণপিটুনী দিয়ে গুরুতর আহত করেছে। থানাপুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মুমূর্ষ অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেছে। তার অবস্থা আশংকাজনক বলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা জানিয়েছে। প্রাপ্ত সূত্র মতে, গত কয়েকদিন ধরে জেলার অন্যান্য স্থানের ন্যায় পাইকগাছার সর্বত্রই বোরকা পার্টি ও ছেলেধরা আতংক বিরাজ করছে। এ ধরণের আতংকে নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছে অনেক এলাকার মানুষ। অনেকেই বলছেন, এটি নিছক গুজব ছাড়া আর কিছুই নয়। আবার অনেকেই বলছেন, কিছু লোক বোরকা পরে রাতে এলাকায় প্রবেশ করে নারী ও শিশুদের উপর নির্যাতন করছে। এমনকি তাদের ধরে নিয়ে যাওয়ার জন্য বোরকা পার্টি তৎপর রয়েছে। 

এদিকে আবার গত মঙ্গলবার আনুমানিক সন্ধ্যা ৭ঘটিকায় পাইকগাছা পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের গোপালপুর গ্রামের মোঃ শাওন গাজী, (৮) পিতা মোঃ আসলাম গাজী। শাওন ঐ সময় দোকান থেকে ফেরার সময় বোরকা পরহিত এক মহিলা তাকে অজ্ঞান করে বাগানের ভিতরে নিয়ে যায়। তাৎক্ষনিক এলাকার লোকজন টের পেয়ে তাকে উদ্ধার করে কিন্তু সেই বোরকা পরহিত মহিলা রাতের অন্ধকারে পালিয়ে যায়। তাকে আর কোথাও খুজে পাওয়া যায়নি।

ওসি এমদাদুল হক শেখ বলেন, ৩ ব্যক্তিকে ছেলে ধরা বোরকা পার্টি সন্দেহে জনগণ ধরে থানায় সোপর্দ করেছে। তারা কোন ও স্বাভাবিক মানুষ না। পাগলও হতে পারে। এলাকায় যা শোনা যাচ্ছে, সবই গুজব, এতে আতংকিত হওয়ার কিছু নেই। বোরকা পার্টি বলে আমরা এখনও এর কোন অস্তিত্ব খুঁজে পায়নি। এটি নিছক একটি গুজব।আমরা পুলিশের পক্ষ থেকে কপিলমুনি এলাকায় মাইকিং করেছি। আগামীকাল উপজেলার সবখানে মাইকিং করা হবে। আমাদের অনুরোধ কোথাও কোন অস্বাভাবিক কোন কিছু দেখলে সাথে সাথে থানাপুলিশকে খবর দিন। দয়া করে কেউ আইন হাতে তুলে নিবেন না। এটি আমাদের অনুরোধ।

যুবলীগনেতা মোঃ আব্দুল গফফার মোড়ল জানান, এ ধরণের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে মর্মান্তিক দৃশ্য দেখে আমি হতবাক হয়েছি। আমার মনে হয় জনগণকে সচেতন করার জন্য থানাপুলিশ ও প্রশাসনকে এলাকায় মাইকিং করা সহ সচেতনতামূলক ব্যবস্থা নেয়া উচিত।

About বিশেষ প্রতিনিধি

Check Also

দল চলবে দলের মতো পাইকগাছায় আ’লীগের বর্ধিত সভায় -এম.পি আকতারুজ্জামান বাবু

পাইকগাছা প্রতিনিধিঃ এন.কে রায়ঃ জেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও খুলনা-৬’র এমপি আকতারুজ্জামান বাবু বলেছেন,গঠনতন্ত্র অনুযায়ী …

গার্লস গাইড এসোসিয়েশন উত্তরা ডিস্ট্রিক্টের ইফতার ও দোয়া অনুষ্ঠিত

আমিনুল ইসলামঃ গতকাল রাজধানীর উত্তরার হোয়াইট হাউস কমিউনিটি সেন্টারে গার্লস গাইড এসোসিয়েশন উত্তরা ডিস্ট্রিক্ট কর্তৃক …

রমযানকে সামনে রেখে পাইকগাছা বাজারে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান।

পাইকগাছা প্রতিনিধিঃ এন.কে রায়ঃ পাইকগাছা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জুলিয়া সুকায়নার নেতৃত্বে আজ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *