Home / জীবনযাপন / বেড়েছে কনসার্ট, বেড়েছে গানের ভিডিও

বেড়েছে কনসার্ট, বেড়েছে গানের ভিডিও

গত বছরের প্রথম প্রান্তিকের (জানুয়ারি-এপ্রিল) চেয়ে এ বছর প্রথম প্রান্তিকে দেশের সংগীতাঙ্গন বেশ চাঙা। একদিকে যেমন কনসার্টে কনসার্টে গান করে ব্যস্ত ছিলেন গানের শিল্পী ও দলগুলো, অন্যদিকে অডিও প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানগুলোও সরব ছিল নিজ নিজ ইউটিউব চ্যানেলে গানের ভিডিও অবমুক্ত করায়।

দেশের অডিওশিল্পের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, এ বছর দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি গত বছরের তুলনায় অনেকটাই স্থিতিশীল। তাই গানের অনুষ্ঠান ও কনসার্টের সংখ্যা বেড়েছে গত বছরের চেয়ে। ফিডব্যাক ব্যান্ডের দলপ্রধান ফোয়াদ নাসের বাবু বলেন, ‘গত বছর জঙ্গি হামলাসহ নানা কারণে বিভিন্ন জায়গায় শো করার অনুমতি নিয়ে সমস্যা হচ্ছিল। এ বছর সেই সমস্যায় সেভাবে পড়তে হয়নি।’ বাবুর এই মন্তব্যের সত্যতা পাওয়া যায় ফিডব্যাকের দুই বছরের প্রথম প্রান্তিকের কনসার্টের সংখ্যা মেলালেই। গত বছরের জানুয়ারি থেকে এপ্রিল পর্যন্ত ৯টি শো করেছিল দলটি। এ বছরের প্রথম চার মাসে ১২টি কনসার্টে অংশ নিয়েছে তারা।

বছরের প্রথম চার মাসে দেশ-বিদেশ মিলিয়ে এ পর্যন্ত জেমস ৩২টি কনসার্ট করেছেন। গত বছর ঠিক এই সময়ের ব্যবধানেই (প্রথম চার মাসে) তাঁর কনসার্টের সংখ্যা ছিল ২৫। ব্যান্ড নেমেসিসও কনসার্টের দিক থেকে গত বছরের প্রথম প্রান্তিকের চেয়ে এ বছর এগিয়ে আছে, জানিয়েছেন দলের ভোকাল জোহাদ।

মাইলসের ভোকাল ও গিটারিস্ট হামিন আহমেদ বলেন, এবার প্রচুর লাইভ ইভেন্ট হচ্ছে। বিভিন্ন জায়গায় অনুমতির ঝামেলা না থাকায় কনসার্টগুলো করা যাচ্ছে। এটি গানের জন্য ইতিবাচক।

দলের পাশাপাশি একক শিল্পীরাও কনসার্ট নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন খুব। সংগীতশিল্পী কনা জানান, জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ৬০টি শো করা হয়েছে, যা গত বছরের প্রথম প্রান্তিকের চেয়ে বেশি। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে কনা নাটোরে শো করতে যাওয়ার পথে মুঠোফোনে বলেন, ‘এবার বেশি শো পাচ্ছি। মনে হচ্ছে আগামী ঈদুল ফিতর পর্যন্ত এভাবেই চলবে।’

সংগীতশিল্পী ইমরান বলেন, ‘গত বছরের জানুয়ারি থেকে এপ্রিল পর্যন্ত ২০ টির মতো শো করেছিলাম। এবার তো সেটা মনে হয় এরই মধ্যে ৪০ ছাড়িয়ে গেছে।’ হৃদয় বলেন, এই সময়টায় সব শিল্পীরই শো বেশি করা হয়। এটাই মৌসুম বলে। তবে গত বছরের চেয়ে এ বছর কনসার্ট ও স্টেজ শোর সংখ্যা বেড়েছে, এটা তিনিও স্বীকার করেছেন।

জানুয়ারি থেকে এপ্রিল পর্যন্ত দেশের বড় বড় প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের ইউটিউব চ্যানেলে উঠেছে বেশ কয়েকটি নতুন গানের ভিডিও ও লিরিকসংবলিত ভিডিও। ধ্রুব মিউজিক স্টেশনের ইউটিউব চ্যানেলে ২০১৮ সালের প্রথম প্রান্তিকে অবমুক্ত করা হয়েছে ২৫টি গানের ভিডিও। গত বছর একই সময়ে অবমুক্ত ভিডিওর সংখ্যা ছিল ১০। প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধার ধ্রুব গুহ বলেন, দিন দিন ভালো ভিডিও গানের চাহিদা বাড়ছে।

তবে এবার একটু ব্যতিক্রম অডিও প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান গানচিল। এই প্রান্তিকে ১০টি গানের ভিডিও তাদের ইউটিউব চ্যানেলে উঠেছে। অথচ গত বছর এই সময়ে এর সংখ্যা ছিল ২০। প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধার আসিফ ইকবাল জানান, গতবারের চেয়ে এই প্রান্তিকের গানগুলোর ভিডিও বেশি দর্শক আলোচনায় এসেছে। অডিও প্রযোজনা সংস্থা সিডি চয়েজ ইউটিউব চ্যানেলে গত বছরের প্রথম প্রান্তিকে অবমুক্ত করেছিল ৪০টি গানের ভিডিও। এই প্রান্তিকে এই সংখ্যা ৪৫ ছাড়িয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধার জহিরুল ইসলাম জানান, তাঁরা পর্যাপ্ত সাড়া পাচ্ছেন বলেই এভাবে এগোচ্ছেন। গানের ভিডিওর সংখ্যা বাড়ার এই ইতিবাচক আভাস পাওয়া গেছে সিএমভি, লেজারভিশন, বাংলার ঢোলসহ আরও কিছু অডিও প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান থেকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *