Home / মতামত / ব্যারিস্টার সুমনকে নিয়ে কেন এতো অযৌক্তিক সমালোচনা?

ব্যারিস্টার সুমনকে নিয়ে কেন এতো অযৌক্তিক সমালোচনা?

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে কাজে লাগিয়ে বাংলাদেশে যিনি ইতিবাচকতার বীজ বপন করেছিলেন তিনিই ‘ব্যারিস্টার সুমন’।সময়ের ব্যবধানে আজ তিনি এক অনন্য উচ্চতায় পৌঁছেছেন।জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে থাকা নানা অসঙ্গতিকে ফেসবুক লাইভের মাধ্যমে তুলে ধরে স্ব স্ব কতৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করে সেসকল অসঙ্গতির সমাধান দিতে সক্ষম হয়েছেন বহুবার।মেইনস্ট্রিম মিডিয়াতে যে সকল অসঙ্গতি ধরা পড়ে না সেসকল বিষয়বস্তু নিয়েই তাঁর ফেসবুক লাইভ সমাচার।বাংলাদেশে যে কয়েকজন গুণী ও মেধাবী মানুষ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে ইতিবাচক প্ল্যাটফর্ম হিসেবে ব্যবহার করে জনকল্যাণমুখী কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে তাঁর মধ্যে অন্যতম ‘ব্যারিস্টার সুমন’।

ব্যারিস্টার সুমন একজন অপ্রতিরোধ্য যোদ্ধা হিসেবে জনসম্মুখে সাম্প্রতিক সময়ে সবার নজর কেড়েছেন। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণে পুরো দেশ যখন দিশেহারা তখনও দমে যাননি তিনি।এ সময়ে তিনি দেশে ঘটে যাওয়া অনেক আপত্তিকর বিষয়ে প্রতিবাদী কন্ঠস্বর হিসেবে নিজেকে আরেকবার প্রমাণ করেছেন।করোনা ভাইরাস নিয়ে যখন পুরো বিশ্ব হিমশিম খাচ্ছে তখন বাংলাদেশে চলছিল ঢাকা ১০ আসনের উপ-নির্বাচন।বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের একজন নেতা হয়েও নিয়ে তিনি সরকার ও নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে সাহসী বক্তব্য দেন যা এক কথায় অতুলনীয় ছিল।পরবর্তীতে করোনা ক্রাইসিসে দেশের স্বাস্থ্য খাতের নানা অসঙ্গতিপূর্ণ কর্মকাণ্ড নিয়ে নিয়মিত লাইভ করেছেন।এ সময়ে তিনি বর্তমান স্বাস্থ্যমন্ত্রীর ব্যর্থতার জন্য পদত্যাগ দাবি করেছেন।স্বাস্থ্যমন্ত্রীর অসচেতনতামূলক কর্মকাণ্ডের জন্য ব্যারিস্টার সুমন তীব্রভাবে সমালোচনা করেন যা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।সরকার দলীয় মন্ত্রীকে নিয়ে এমন গঠনমূলক সমালোচনা কেউ করেছেন কিনা তা আমার জানা নেই।করোনা ক্রাইসিসের সময় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়,পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের মধ্যে যে সমন্বয়ের অভাব রয়েছে তা নিয়ে তিনি তাঁর বক্তব্য তুলে ধরেছেন। সরকার দলীয় সমর্থক হয়েও এমন প্রতিবাদী কন্ঠে কেউ কথা বলেছেন কিনা তাও আমার জানা নেই।

করোনা সংক্রমণের দিশেহারা বাংলাদেশে ব্যারিস্টার সুমন নিয়মিত আলো ছড়িয়েছেন।দেশ ও মানুষের কল্যাণে ব্যারিস্টার সুমন ‘ওয়ান ম্যান আর্মি’ হিসেবেই প্রতীয়মান হয়েছেন। নিজের বেতনের পুরো অংশ,শখের গাড়ি এবং ডুপ্লেক্স বাড়িও বিলিয়ে দিতে এতটুকু কার্পণ্য করেনি।তাঁর শখের গাড়িটি তিনি তাঁর চুনারুঘাট উপজেলার সর্বস্তরের মানুষের চিকিৎসা সংক্রান্ত যেকোনো প্রয়োজনে ব্যবহার করার জন্য উপহার দিয়েছেন।করোনায় নিয়োজিত ডাক্তারদের সুবিধার্থে তিনি তার ডুপ্লেক্স বাড়িটিও স্বেচ্ছায় ছেড়ে দিয়েছেন।নিজের বেতনের অর্থ দিয়ে হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করেছেন।নিজের পরিবারের সদস্যদের সহযোগিতা নিয়ে ‘এর্শাদ-আম্বিয়া ফাউন্ডেশন’ এর কার্যক্রম শুরু করেন।এই ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে তিনি কয়েক হাজার হতদরিদ্র পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছেন।চুনারুঘাটের মানুষ না খেয়ে থাকবে না বলে যে প্রতিশ্রুতি তিনি দিয়েছেন তা তিনি সফলতার সাথে বাস্তবায়ন করতে সক্ষম হয়েছেন।প্রতিদিনই শত শত মানুষের জন্য ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করছেন।সরকারের সংসদ সদস্য কিংবা মন্ত্রী না হয়েও ব্যারিস্টার সুমন জনকল্যাণে যা যা কাজ করেছেন তা বাংলাদেশ আর কেউ করে দেখাতে পারেনি।ব্যারিস্টার সুমনদের মতো এমন মানুষরা ক্ষণজন্মা হয়।এরা বারবার এই পৃথিবীতে আসে না।এদেরকে উৎসাহ দিলে দেশ ও জাতি উপকৃত হয়।তবে অত্যন্ত দুঃখের বিষয়,এই মানুষটাকে নিয়েও একদল অমানুষ নিয়মিত ঠাট্টা উপহাস করে বেড়াচ্ছে।তাঁর ফেসবুক লাইভ থেকে কাটছাট ভিডিও বানিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল করার অপচেষ্টা চালানো হচ্ছে।এই কাজগুলো যারা করছে তাঁরা সবাই দেশ ও জাতির শত্রু।এরা দেশকে গলা চিপে আটকে রেখে পৈশাচিক আনন্দ পায়।এদের কাজই হলো ষড়যন্ত্র ও অগঠনমূলক সমালোচনায় মেতে থাকা।এতে অবশ্য তাঁরা সফল হতে পারেনা।ব্যারিস্টার সুমনকে নিয়ে যত বেশি সমালোচনা হয় তত বেশি তিনি নিজেকে অপ্রতিরোধ্য যোদ্ধা হিসেবে প্রমাণ করেন।এজন্যই মূলত হেরে যায় এইসব অমানুষদের সমালোচনা পক্ষান্তরে জিতে যায় ব্যারিস্টার সুমনের প্রতি লাখো মানুষের ভালোবাসা।

লেখাঃ সাইফুল ইসলাম বিপ্লব,

শিক্ষার্থী,ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

About বাংলার নিউজ ডেস্ক

Check Also

কি পরিমান ধৈর্য শক্তির প্রয়োজন ৩৮ তম দিন ধারাবাহিক কার্যক্রম চালিয়ে নেওয়া।

আজ ৩৮ তম দিন কি পরিমান ধৈর্য শক্তির প্রয়োজন ৩৮দিন ধারাবাহিক ভাবে কার্যক্রম চালিয়ে নেওয়া …

মানবতার যোদ্ধা এমডি জব্বার আলীর নেতৃত্বে কৃষকের ধান ঘরে তুলে দিল ছাত্ররা।

এস.টি.এইচ ফুয়াদ (নির্বাহী সম্পাদক ) মানবতার যোদ্ধা এমডি জব্বার আলীর নেতৃত্বে অসহয় কৃষকের ১৬ শতক …

খুলনার মানবতার ফেরিওয়ালা শেখ মো: জাহাঙ্গীর আলমের দিকনির্দেশনায় প্রতিনিয়ত চলছে মানবসেবা।

এস.টি.এইচ ফুয়াদ (নির্বাহী সম্পাদক ) সাবেক ছাত্রলীগ ফোরাম, খুলনা তারিখ: ০১-০৫-২০২০ইং। মানবতার ফেরিওয়ালা শেখ মো: …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *