Home / খুলনা / ৪০ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে চালু হচ্ছে একীভূত শিক্ষা

৪০ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে চালু হচ্ছে একীভূত শিক্ষা

অনলাইন ডেস্ক
প্রতিবন্ধী ও অটিজম শিশুদের মূলধারার শিক্ষা নিশ্চিত করতে সারাদেশের ৪০টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে একীভূত শিক্ষাব্যবস্থা চালু হচ্ছে। পর্যায়ক্রমে দেশের প্রতিটি জেলায় একটি করে স্কুলে এ শিক্ষা চালু করা হবে। সোমবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ থেকে একীভূত শিক্ষাব্যবস্থা চালু করতে নির্বাচিত বিদ্যালয়গুলোর তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে।মন্ত্রণালয়ের আদেশে বলা হয়েছে, নির্বাচিত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নিকটবর্তী মাধ্যমিক স্কুল নির্বাচন করা হয়েছে। নির্বাচিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে ঢাকা অঞ্চলের ১১, ময়মনসিংহ অঞ্চলের ছয়, কুমিল্লা অঞ্চলের চার, সিলেট অঞ্চলের চার, চট্টগ্রাম অঞ্চলের সাত ও রাজশাহী অঞ্চলের আটটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় রয়েছে। মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, একীভূত শিক্ষার আওতায় যুক্ত করতে দেশের প্রতিটি জেলায় একটি করে মাধ্যমিক বিদ্যালয় বাছাই করার উদ্যোগ নেওয়া হয়।

সম্প্রতি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ থেকে মাধ্যমিক বিদ্যালয় বাছাই করতে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরকে (মাউশি) নির্দেশ দেয়। ৪ অক্টোবর মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনায় একীভূত শিক্ষার জন্য বিশেষায়িত প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর কাছাকাছি একটি করে মাধ্যমিক বিদ্যালয় বাছাই করতে বলা হয়েছে। জানা গেছে, টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) বাস্তবায়নে এ উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন দেশে উচ্চমাত্রার প্রতিবন্ধীদের জন্য ‘বিশেষায়িত শিক্ষা’ কার্যক্রম সীমিত আকারে চালু রয়েছে। দেশব্যাপী এ বিশেষায়িত শিক্ষার জন্য প্রতিটি উপজেলায় একটি করে বিশেষায়িত প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার কার্যক্রম চলছে। এর বাইরে মৃদুমাত্রার প্রতিবন্ধী বা বিশেষায়িত শিক্ষা কার্যক্রমের মাধ্যমে শিক্ষা অর্জন করা শিক্ষার্থীদের জন্য একীভূত শিক্ষা চালু করা হচ্ছে। সূত্র জানায়, এর আগে দেশের আটটি মহানগরের আটটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে পাইলট প্রকল্প হিসেবে ‘একীভূত শিক্ষা’ কার্যক্রম শুরুর উদ্যোগ নেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এসব বিদ্যালয়ে সাধারণ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে প্রতিবন্ধী শিশুরা শিক্ষা কার্যক্রমে অংশ নেয়। এর সঙ্গে ৪০টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় নতুন করে যুক্ত হলো।

প্রসঙ্গত, একীভূত শিক্ষা প্রক্রিয়ায় প্রত্যেক শিশুর চাহিদা ও সম্ভাবনা অনুযায়ী শিখন ও জ্ঞানার্জনের প্রতিবন্ধকতা সীমিত ও দূরীকরণের মাধ্যমে শিক্ষাব্যবস্থার উন্নতি ঘটানো হয়। এ পদ্ধতির মাধ্যমে ধর্ম-বর্ণ, ধনী-গরিব, ছেলে-মেয়ে, প্রতিবন্ধী-সুস্থসহ সব শিশুকে একই শিক্ষক দ্বারা, একই পরিবেশে একসঙ্গে মানসম্পন্ন শিক্ষাদান করা হয়। এ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে শিক্ষার বিভিন্ন চাহিদাগুলোকে সামাজিক সাংস্কৃতিক অংশগ্রহণের মাধ্যমে পরিপূর্ণ করা হয়। এ শিক্ষাব্যবস্থা প্রত্যেক শিক্ষার্থীর সাম্যতা ও অধিকার নিশ্চিত করে। একীভূত শিক্ষা কার্যক্রমে প্রতিবন্ধীসহ প্রান্তিক ও সাধারণ শিশু একসঙ্গে অধ্যয়ন করে। ফলে পরস্পর সম্পর্কে জ্ঞান ও শ্রদ্ধাবোধ অর্জন করতে পারেে।

About বাংলার নিউজ ৭১

Check Also

আলাউদ্দিন আল মামুন সজীব ওয়াজেদ জয় পরিষদ পাবনা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মনোনীত

আলাউদ্দিন আল মামুন সজীব ওয়াজেদ জয় পরিষদ পাবনা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মনোনীত হওয়ায় পাবনা …

লায়ন্স ক্লাব অব ঢাকা ক্যাপিটাল গার্ডেনের উদ্যোগে চুয়াডাঙ্গার আলুকদিয়ায় স্বাস্থ্য সুরক্ষা সেমিনার

স্টাফ রিপোর্টার : লায়ন্স ক্লাব অব ঢাকা ক্যাপিটাল গার্ডেনের উদ্যোগে গতকাল চুয়াডাঙ্গার আলুকদিয়ায় দিনব্যাপী বিভিন্ন …

ডুমুরিয়ার গর্ব ড. বিশ্বজিৎ চন্দ ইউজিসির সদস্য মনোনীত হয়েছেন,উপজেলা চেয়ারম্যান এজাজ আহমেদের অভিনন্দন

আক্তারুল আলম সুমন ; খুলনা ব্যুরো প্রধান : ডুমুরিয়ার কৃতি সন্তান,সাবেক মন্ত্রী জনাব নারায়ন চন্দ্র …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *